পাকিস্তান ভারত ম্যাচ মানেই যুদ্ধ

Posted by

খেলা প্রতিদিন: নিউ ইয়র্কে রোববার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের হাইভোল্টেজ ম্যাচে ভারতের জয় ৬ রানে।নাসাউ কাউন্টি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রথম ১০ ওভারে ৩ উইকেটে ৮১ রানের ভালো অবস্থানে থেকে ১১৯ রানে গুটিয়ে যায় ভারত। জবাবে ১২ ওভারে পাকিস্তানের সংগ্রহ ছিল ২ উইকেটে ৭২। শেষ ৮ ওভারে ৮ উইকেট হাতে রেখে দরকার ছিল ৪৮ রান। তারপরও পারেনি তারা, ২০ ওভারে ৭ উইকেটে করে ১১৩ রান।ভারতের জয়ের নায়ক বুমরাহ। ৪ ওভারে স্রেফ ১৪ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন ৩০ বছর বয়সী এই পেসার। ম্যাচ সেরার পুরস্কার ওঠে তার হাতেই।এই সংস্করণে এত কম পুঁজি নিয়ে আগে কখনও জিততে পারেনি ভারত। এর আগে সবচেয়ে কম ১৩৮ রান ডিফেন্ড করেছিল তারা জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে, ২০১৬ সালে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতের এই ম্যাচের চেয়ে কম রান ডিফেন্ড করতে পারেনি আর কেউ। ২০১৪ আসরে চট্টগ্রামে শ্রীলঙ্কাও ঠিক ১১৯ রান ডিফেন্ড করেছিল নিউ জিল্যান্ডকে ৬০ রানে গুটিয়ে দিয়ে।ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি মিলিয়ে বিশ্ব মঞ্চে মোট ১৬ বার পাকিস্তানের মুখোমুখি হয়ে ১৪ ম্যাচেই জিতল ভারত। পাকিস্তানের জয় স্রেফ একটি, টাই হয় অন্যটি। টাই হওয়া ওই ম্যাচেও শেষ পর্যন্ত জিতেছিল ভারতই।চলতি আসরে প্রথম দুই ম্যাচেই হেরে সুপার এইটে ওঠার পথ ভীষণ কঠিন হয়ে গেল পাকিস্তানের জন্য। বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে উইকেটে পেসারদের জন্য ছিল সহায়তা। তবে এই মাঠে প্রথম দুই ম্যাচের মতো অতটা ব্যাটিং দুরূহ ছিল না মোটেও।ছোট লক্ষ্য তাড়ায় প্রথম ৪ ওভারে বিনা উইকেটে ২১ রান করে পাকিস্তান। এর মাঝে দুই ওপেনারই অবশ্য জীবন পান একবার করে। পরের ওভারে অধিনায়ক বাবর আজমকে ফিরিয়ে ভারতকে প্রথম সাফল্য এনে দেন বুমরাহ। নাসিম-রউফদের দারুণ বোলিংয়ে লক্ষ্যটা নাগালে থাকলেও, ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় আরেকটি হার সঙ্গী হলো পাকিস্তানের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*