নতুন সরকার এসে উপহার দিল বিদ্যুত ও গ্যাসের দাম বাড়িয়ে

Posted by

নিজস্ব প্রতিবেদক: নতুন এই সরকার গঠন করেছে আওয়ামী লীগ। এবার তাদের নির্বাচনী ইস্তেহার থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ আলোচনা ছিল দ্রব্যমূল্য ও মানুষের ব্যবহারযোগ্য পণ্যে ও ব্যবস্থাপনায় স্বস্তি নিয়ে আসা। তাই বাংলাদেশের তেসলা / টেসলা মন্ত্রী সংসদে হুংকার দিয়ে বলেছেন দ্রব্যমূল্যের পাশাপাশি বিদ্যুৎ গ্যাসের দাম বাড়ানো হবে। আসছে মার্চ থেকে গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বাড়ছে; সেই সঙ্গে বাড়ছে বিদ্যুৎকেন্দ্রের গ্যাসের দাম। বিদ্যুতের দাম প্রতি ইউনিট সর্বনিম্ন ৩৪ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ৭০ পয়সা পর্যন্ত বাড়বে বলে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু জানিয়েছেন। মঙ্গলবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, “বিদ্যুতের নতুন দাম মার্চ মাস থেকে কার্যকর হবে। গ্যাসের দামও বাড়ছে। তবে বাসাবাড়ির গ্রাহক ও শিল্প পর্যায়ে গ্যাসের দাম এখন বাড়বে না। শুধুমাত্র যে গ্যাস ব্যবহার করে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয় সেই গ্যাসের দাম বাড়ছে।” সর্বশেষ ২০২৩ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি খুচরায় ৫ শতাংশ বাড়িয়ে বিদ্যুতের নতুন মূল্যহার নির্ধারণ করা হয়, যা মার্চ থেকে কার্যকর করা হয়। বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে যে বড় অংকের ভর্তুকি দিতে হয়, সে কথা মনে করিয়ে দিয়ে নসরুল হামিদ বলেন, “ডলারের দামের পার্থক্যের কারণে ভর্তুকি আরও বেশি বেড়েছে। আস্তে আস্তে ভর্তুকি সমন্বয়ে যেতে হবে। আগামী তিন বছর আমরা এটাকে সমন্বয় করব, যাতে সহনীয় পর্যায়ে থেকে সমন্বয়টা হয় সেটার একটা ব্যবস্থা আমরা নিয়েছি। “বিদ্যুতের ক্ষেত্রে ভর্তুকি থেকে ধীরে ধীরে বেরিয়ে যাওয়ার জন্য মূল্য সমন্বয়ে যাচ্ছি। তেলের ক্ষেত্রে আমরা ডায়নামিক প্রাইসিংয়ে যাচ্ছি।”গ্যাসের দাম বাড়ানোর বিষয় তিনি বলেন, “গ্যাসের দাম মূল্য সমন্বয় গ্রাহক পর্যায়ে হচ্ছে না। বিদ্যুৎকেন্দ্রের গ্রাহকদের জন্য সেটা হচ্ছে। গ্যাসের আবাসিক পর্যায়ে ব্যবহারের ক্ষেত্রে দাম বাড়ছে না। শিল্পেও গ্যাসের দাম বাড়ছে না।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*