নাটোরের নলডাঙ্গায় টিসিবির পণ্য কিনতে প্যাকেজ বিড়ম্বনায় ক্রেতারা

Posted by

নাটোর প্রতিনিধি: রমজান উপলক্ষ্যে নাটোরের নলডাঙ্গায় নিত্যপণ্য বিক্রি শুরু করেছে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। সপ্তাহে দুইদিন উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে বিদেশী পেঁয়াজ,খেজুর-ছোলাসহ ছয়টি পণ্য বিক্রি করা হচ্ছে। তবে অভিযোগ উঠেছে, অধিকাংশ ডিলার টিসিবির পণ্য প্যাকেজ আকারে বিক্রি করছেন। এতে ক্রেতারা বিড়ম্বনায় পড়েছেন। যদিও টিসিবির পক্ষ থেকে এমন কোনো নিয়ম নেই বলে দাবি করা হচ্ছে। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানিয়েছেন খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, নলডাঙ্গা উপজেলায় রমজান উপলক্ষ্যে টিসিবির পণ্য দিচ্ছে সরকার। চিনি, সয়াবিন তেল, মসুর ডাল, খেজুর, ছোলা ও পেঁয়াজ বিক্রি করা হচ্ছে। একসাথে সাধারণ আয়ের মানুষরা একসঙ্গে ৬’শ থেকে ৮’শ টাকা দিয়ে প্যাকেজ নিতে পারছেন না। এতে কওে টিসিবি পণ্য নিয়ে ট্রাক দাড়িয়ে থাকলেও অনেকে কিনছেন না। নলডাঙ্গা উপজেলার ডিলার মেসার্স মিজান ষ্টোর টিসিবির পণ্য প্যাকেজ আকারে বিক্রি করছেন। সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) পেঁয়াজের প্রতি কেজি দর মাত্র ২০ টাকা। এত কম দামেও টিসিবির পেঁয়াজ কিনতে ক্রেতাদের আগ্রহ নেই। কারণ, পেঁয়াজগুলোতে পচন ধরেছে। অন্যদিকে বাজারে দাম বেশ কমে গেছে।টিসিবির পরিবেশকেরা এখন নতুন কৌশল নিয়েছেন। ক্রেতাদের ভোজ্যতেল ও ডালের সঙ্গে পেঁয়াজ কিনতে বাধ্য করছেন। ডিলার মিজান জানান, ৬৭০ টাকা প্যাকেজে টিসিবির পণ্য বিক্রি করছি। এতে দুই কেজি করে চিনি, সয়াবিন তেল, মসুর ডাল, ছোলা ও পেঁয়াজ ছিল। টিসিবি অফিস থেকে এভাবে বিক্রি করতে বলা হয়েছে বলে জানান তিনি। প্যাকেজ ছাড়া কেউ না নিলে তাকে দেওয়া হবে না। মামুন নামের এক ক্রেতা বলেন, তেল, চিনি ও ডাল প্রয়োজন। আমাদের এলাকায় দেশি পেঁয়াজ উৎপাদন হয় এজন্য কিন্তু পেঁয়াজের দরকার নেই। বাধ্য হয়ে বিদেশী বড় বড় সাইজের পচা পেঁয়াজও কিনতে হচ্ছে। নিজেদের ব্যবসায়িক সুবিধায় ডিলাররা এভাবে ইচ্ছেমতো পণ্য বিক্রি করছেন। আর এতে ভোগান্তি পোহাচ্ছেন নিম্নআয়ের গ্রামের ক্রেতারা। উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, প্যাকেজ আকারে টিসিবির পণ্য বিক্রি করার নিয়ম নেই। এবিষয়ে টিসিবি কৃর্তপক্ষের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*