আনমনা পরপার

Posted by

রাস্তা দিয়ে হাটছিলো সুমন। কিছুটা আনমনে। নরম রোদে পা ফেলে হাটতে ভালই লাগছিলো সুমনের। শীতটা গত দুইদিন বেশ কষ্ট দিয়েছে ওকে। বনগাঁ রেল স্টেশনের উপর একটা চা দোকান আছে। ইচ্ছে আছে একটা চা খাবে জমিয়ে। তারপর ফিরতি ট্রেন ধরে কোলকাতা। আজকে বইয়ের দোকানটা খুলতেই হবে। ওর কিছু পুরাতন কাস্টমার খোঁজ নিচ্ছিল। বাংলাদেশ থেকে তিনজন ক্রেতা এসেছেন। ওয়াটসএ্যাপে জানিয়েছেন তারা আজকে আসবে। বাংলাদেশ থেকে ওর কাছে যারাই আসেন সবাই কিছু না কিছু গিফট নিয়ে আসেন। সুমনের খুব শখ পাশের দেশটিতে ঘুরতে যাওয়া। সময় পেলেই বর্ডারের কাছে চলে যায়। বাংলাদেশ থেকে আসা মানুগুলোকে দেখে। কত ভালো বাংলা বলেন ওনারা। আর ভাষায় যেন কেমন একটা আপন টান। বাংলাদেশটাকে ভালবাসে। মাশরাফিকে ভালবাসে। শেখ হাসিনাকে ভালবাসে সুমন। কষ্ট পায় যখন দেখে এদেশের সীমান্ত রক্ষীরা বাংলাদেশ থেকে আসা লোকদের বিনা কারণে কষ্ট দেয়। খুব বাজার করতে জানে বাংলাদেশীরা। ওর দোকান থেকে হরেকরকম বই কিনে নিয়ে যায়। পাঁচ হাজার দশ হাজার টাকা বিল করে।

ভাবছে আর হাঁটছে সুমন। বনগাঁ রেলস্টেশনের ঐ পারে পসরা সাজিয়ে বসে আসে হরেক রকম ফেরিওয়ালা। সুমন ডাউনের দিকে রেল লাইন পার হয়ে স্টেশনে উঠতেই ঠাস করে সজোরে শব্দ হলো। আপের একটা ট্রেন বিশাল গতিতে সুমনকে ছুয়ে বেরিয়ে গেলো। সুমন যথারীতি বেশ খানিকটা উঠে দাড়িয়ে তারপর ধপাস করে শুয়ে গেলো। চারিদেকে শুধু চিৎকার আর চেঁচামেচী।  

রেজা নওফল হায়দার / ছোট গল্প লেখক/সাংবাদিক

2 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*