ফিরবার পথে

Posted by

কেয়া একজন ব্যাংক কর্মকর্তা। বেসরকারি ব্যাংকে ক্যাশ ইন বিভাগে চাকরি করে। প্রতিদিন দেশের প্রচলিত নোটগুলো তাকে হাতরাতে হয়। কেউ টাকা জমা রাখে কেউ টাকা উত্তোলন করেন। বহু ধরনের মানুষ। নানান পেশার নানান মতের ভিন্ন মেজাজের। তারমধ্যে ম্যানেজার স্যারের নির্দেশ বড়কর্তা নির্দেশ ভিআইপি কাস্টমারদের অনুরোধ। তবে সে যে ধরনের হোক না কেন কেয়ার সামনে রাখা উঁচু দেয়ালের সামনে এসে সবাইকে একটি সরল রেখায় পরিণত হতে হয়। সবারই অনুরোধ একটা একটু তাড়াতাড়ি হয় যেন। কেয়া তার সর্বোচ্চ দিয়ে চেষ্টা করে। এই সরল নিরানন্দ জীবনে কোন বৈচিত্র নেই। মাঝখানে ওর জন্মদিনে ম্যানেজার অপারেশন স্যার ওকে ডেকে উইশ করেছেন। তারপর প্রতিদিনের মত পায়ে হেঁটে বাসে উঠে রিকশায় চড়ে বাসায় ফেরা আবার সেই ভাবে অফিসে আসা।

প্রতিদিন সরল রেখার মতো জীবন ওর। আজ হঠাৎ করেই সীমা সকালে বলল ম্যানেজার স্যার তোকে ডাকছেন। স্যারের রুমে ঢুকেই তার একটা কাগজ ধরিয়ে দিয়ে বলল তোমার দুই লাখ টাকার লোন অফিস গ্রহণ করেছে। এই নাও চেক। স্যারকে ধন্যবাদ দিয়ে রুম থেকে বেরিয়ে এসে সাথে সাথে টাকাটা একাউন্টে ডিপোজিট করে ফেলল। ওর ছোট একটা স্বপ্ন ছিল আজ সেটা পূরণ হবে। ছোট ভাই সোহানকে ফোন করে বলল তুই অফিসে চলে আয় বিকেলের দিকে।

সোহান অফিসে এল ভরদুপুর সময়‌। দুপুরের লাঞ্চ ব্রেকের সময় দুই ভাইবোন মজা করে খেলো। তারপর স্যারের রুমে ঢুকে বিনয়ের সাথে আজকের হাফ বেলা ছুটি চাইল। স্যার দিয়ে দিলেন। কেয়া সোহানকে নিয়ে ওর পছন্দের স্কুটির শোরুম চলে এলো। অনেকদিন আগে থেকে এই স্কুলটা ও পছন্দ করে রেখেছিল। স্কুটিটা কিনতে পেরে ওর খুব ভালো লাগছে। কেমন যেন প্রজাপতির মতো উড়ে বেড়াতে ইচ্ছে করছে। সোয়ান বাইক চালাতে পারে। কেয়াও শিখেছিল চালানো। কে বলল আমি চালাই তুই পিছনে বস। দুই ভাইবোন প্রজাপতির মতো উড়ে চলল।

ট্রাফিক সিগনালে বাসের গা ঘেঁষে দাঁড়াতেই বাসের জানলা দিয়ে মানুষজন ড্যাবড্যাব করে তাকাচ্ছে ওর দিকে। রিক্সাওয়ালা বাজে কথা শোনালো। রাস্তায় দাঁড়ানো আনসার ওদের দাঁড়িয়ে কত কথা জিজ্ঞেস করল। কাগজপত্র ঠিক থাকার পরও ট্রাফিক পুলিশ ইচ্ছে করে কত কথা শোনালো। হাতিরঝিল দিয়ে দুই ভাইবোন বাসায় যাবার সময় কিছু মধ্য বয়সী লোকজন গালাগালি দিল। চুল রং করা উদ্ভট টাইপের ছেলেরা ওই মাল যায় বলে চিৎকার দিয়ে গেল।

রেজা নওফল হায়দার। সময়: সকাল আটটা দুই। তারিখ: ১৮ অক্টোবর ২০২০/ ০২ কার্তিক ১৪২৭।

One Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*